আমার মুক্তিযুদ্ধ

আমার বয়সটা খুব বেশী না আবার একেবারে কমও না । যে দশকে মুক্তিযুদ্ধ হল সে দশকে আমার জন্ম হয় নাই। আমার জন্মের প্রথম দশক চলে গেল শুধু বড় হতে হতেই । এরশাদ সরকার পতনের সময় হতে রাজনীতি কিছু বুঝতে শুরু করি । স্কুলের বইতে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস কিছু পড়ি আরও কিছু বই পড়ে K ফোর্স, S ফোর্স ও Z ফোর্স এর কথা শুনি । সিনেমাতে দেখি কিছু চিত্র।

৯০ দশকে বাংলাদেশের রাজনীতিতে একটা কথা খুব শুনতে থাকি । তাহল মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের আর বিপক্ষের শক্তি । তখন ঘাদানির আন্দোলনের কথা শুনতাম । জাহানারা ইমামের কথা শুনি । তার স্মৃতিকথা একাত্তুরের দিনগুলি বারবার পড়ি। তারপর রাজনীতির পট পরিবর্তন হল । মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের দাবীদার আওয়ামীলীগ সরকার গঠন করল । সারারাত আওয়ামী লীগের জয়ের জন্য দোয়া করলাম । প্রথম দিন টিভিতে যখন বঙ্গবন্ধুর ভাষন শোনাল প্রথমে গায়ে কাটা দিল, পরে চোখে পানি চলে আসল । আমি ভাবতাম এবার যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হবে । কিন্তু আমরা কি দেখলাম ? আমরা ১লা বৈশাখে রমনায় কি দেখলাম ? ঐসময় মুক্তিযুদ্ধ হয়ে গেল রাজনীতির অস্ত্র।

বুঝে নিলাম যুদ্ধাপরাধীদের কি হবে ? আমার সিদ্ধান্ত আমি নিলাম । শুনেছি ইসলাম ধর্মে আছে কেউ অন্যায় করলে যদি তা প্রতিরোধ করতে না পারি তাহলে অন্তত তাকে ঘৃনা করে সংস্পর্শ ত্যাগ করতে হবে । আমি খুব খুদ্র মানুষ । আমি যুদ্ধাপরাধী বিচার নিয়ে কিছুই করতে পারব না । আমি এমন বিশিষ্ট কেউনা যে আন্দোলনের ডাক দিব । এমনও না পত্রিকায় কলাম লিখব । আমি ঘৃনা করি । এমন ঘৃনা করি যে তাদের নিয়ে কথাও বলতে চাইনা, কিছু লিখতেও না।

আমার কাছে আমার মুক্তিযুদ্ধ এই । আমি পাকিস্তান ক্রিকেট টীমকে সাপোর্ট দেই না । পাকিস্তানী পন্য ব্যবহার করি না । পাকিস্তানী ফুড খাই না । আমার এক চাচা মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয়েছিলেন । আমার মামা ক্লাস এইটে পড়ার সময় যুদ্ধে গিয়েছিলেন । তার নামে গ্রামের মানুষ কিছুই করে নাই । আমার মামা ক্লাস এইটে পড়ার সময় যুদ্ধে গিয়েছিলেন । আমার আব্বা মুক্তিযোদ্ধা না তবে যুদ্ধের সময় গ্রামের নিরাপত্তা আর গ্রামে যারা আশ্রয় নিয়েছিল তাদের জন্য কাজ করেছে যা ঐসময় সবাই করেছে।

সামহোয়ার ইন ব্লগ নিয়ে আমি খুবই আশাবাদী । এখানে অনেকেই খুব ভাল লেখে । যতক্ষন ব্লগ পড়ি ভাল লাগতে থাকে । মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে যখন কেউ ব্লগ লিখে ভাবতে অবাক লাগে তারা এত জানে? তাদের হৃদয়ে এতটা দেশপ্রেম? আবার কখন আহত হই যখন দেখি এই মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে অযথা কাদা ছোড়াছোড়ি হয় । আমরা রাজনৈতিক ভাবে দলেদলির কারনে অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি । এখানে আমরা যারা আছি আমরাও কি বিভক্ত হব ? অন্যের মত সহ্য করতে না পারলে তা না শোনাই ভাল ।

আমরা আমাদের রাজনীতিবিদ থেকে একটু কি আলাদা হব না ?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *