ইতিহাস খুড়ে দেখা : মুজিবনগর সরকার, স্বাধীনতার ঘোষনাপত্রের মুল দলিল এবং মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক

একটি জাতির জন্য তার সৃষ্টি সংগ্রামের সঠিক ইতিহাস জানাটা দরকারী । মুক্তিযুদ্ধের পর বিভিন্ন সময়ে ক্ষমতায় থাকা সরকারগুলির স্বেচ্ছাচারিতার কারণে বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামের সঠিক ইতিহাস নিয়ে নতুন প্রজন্মের মধ্যে স্পষ্টতই বিভ্রান্তি আছে । পাঠ্যপুস্ত থেকে মিডিয়া সর্বত্রই ইতিহাসের কাটাছেড়া হয়েছে তাই এর মাঝ থেকে সঠিক ইতিহাস তুলে আনা কষ্টকর । মুক্তিযুদ্ধের সমসাময়িক জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক বিভিন্ন দলিলপত্র এই সব বিভ্রান্তি থেকে নতুন প্রজন্মসহ সকল বাংলাদেশীকে সঠিক ইতিহাস জানানোর ক্ষেত্রে একটা গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করতে পারে ।

ইদানীং ব্লগে মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক কে ছিলেন সে ব্যাপারে অনেক আলোচনা হচ্ছে । কে ছিলেন সর্বাধিনায়ক ? বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নাকি জেনারেল আতাউল গণি ওসমানী? আসলে এই ব্যাপারটি নিয়ে অনেকেরই স্বচ্ছ ধারণার অভাব আছে । পাঠ্যপুস্তক থেকেও সঠিক ব্যাপার জানা সম্ভব নয়, এমনকি বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব প্রকাশনায়ও এ ব্যাপারে দুই ধরনের কথা আছে । কোথাও বলা হয়েছে বঙ্গবন্ধু ছিলেন সর্বাধিনায়ক আবার কোথাও বলা হয়েছে জেনারেল ওসমানী ছিলেন সর্বাধিনায়ক । আসুন ইতিহাস খুড়ে দেখি, আসল সত্য কোনটি?

১৯৭১ সালের ২৬ শে মার্চের স্বাধীনতা ঘোষণার সময় বাংলাদেশে কার্যত কোন সরকার ছিলোনা । বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতা ঘোষণা করা হলেও এবং তাকে সরকার প্রধান হিসাবে ঘোষণা দেয়া হলেও বাংলাদেশ সরকারের রূপরেখা ১৯৭১ এর ১০ই এপ্রিল পর্যন্ত স্পষ্ট ছিলোনা । ১৯৭১ সালের ১০ই এপ্রিল ১৯৭০ এর নির্বাচনে বিজয়ী জাতীয় পরিষদের সদস্যরা আনুষ্ঠানিক ভাবে বাংলাদেশ সরকার গঠন করেন এবং এই সরকার ১৭ই এপ্রিল কুষ্টিয়া জেলার মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলার (যেটিকে পরে মুজিবনগর নামে নামকরণ করা হয়) একটি আমবাগানে শপথ গ্রহণ করেন । ১৭ই এপ্রিল শপথ নিলেও ১০ই এপ্রিল সরকার গঠনের পর সেইদিনই তারা স্বাধানতার ঘোষণাপত্র গ্রহণ করেন । মুল ঘোষণাপত্রটি ছিলো ইংরেজীতে এবং সেটি এই পোষ্টের সাথে সংযুক্ত করেছি ।

এই ঘোষণাপত্রের মাধ্যমে আনুষঙ্গিক ব্যাখ্যা প্রদান করে ১৯৭১ সালের ২৬শে মার্চ হতে বাংলাদেশকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসাবে ঘোষণা করা হয় এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বাধীন বাংলাদেশের এবং সৈয়দ নজরুল ইসলামকে উপ-রাষ্ট্রপ্রধান হিসাবে ঘোষণা করা হয় । সেই সাথে ঘোষণাপত্রে এটি উল্লেখ করা হয় যে প্রেসিডেন্ট নবগঠিত বাংলাদেশ সরকারের সকল আর্মড ফোর্সেস এর সুপ্রীম কমান্ডার হিসাবে দায়িত্ব পালন করবেন । সুপ্রীম কমান্ডার এর সরল বঙ্গানুবাদ হতে পারে “সর্বাধিনায়ক” । মুল ইংরেজী থেকে উদ্ধৃতি ..
“………..We the elected representatives of the people of Bangladesh as honor bound by the mandate given to us by the people of Bangladesh whose will is supreme, duly constituted ourselves into a Constituent Assembly, and
Having held mutual consultations, and
In order to ensure for the people of Bangladesh equality, human dignity and social justice,
Declare and constitute Bangladesh to be sovereign peoples’ Republic and thereby confirm the declaration of independence already made by Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman, and
Do hereby affirm and resolve that till such time as a Constitution is framed, Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman shall be the President of the Republic and that Syed Nazrul Islam shall be the Vice-President of the Republic, and
That the President shall be the Supreme Commander of all the Armed Forces of the Republic.…..

এই ঘোষণাপত্রটিই ছিলো চূড়ান্ত বিজয়লাভের পর বাংলাদেশ সরকার গঠন এবং সংবিধান রচনার আইনী দলিল ।

এখানে একটি ব্যাপার উল্লেখ্য যে তখনো নবগঠিত বাংলাদেশ সরকারের কোন নিয়মিত সেনাবাহিনী ছিলোনা এবং তখনও মুক্তিবাহিনী গঠিত হয়নি । তখন যেটি ছিলো সেটি হলো পাকিস্তানী আগ্রাসনের বিরুদ্ধে এদেশের মুক্তিকামী মানুষের স্বত:স্ফূর্ত প্রতিরোধের মাধ্যমে গড়ে ওঠা মুক্তিফৌজ। এরপর ১৭ই এপ্রিল শপথ গ্রহণ করার পর গঠন করা হয় মুক্তিবাহিনী যার কমান্ডার-ইন-চীফ (Commander-in-chief) হিসাবে নিয়োগ দেয়া হয় কর্ণেল (পরবর্তীতে জেনারেল) আতাউল গণি ওসমানীকে । এখানে উল্লেখ্য যে জেনারেল ওসমানীর ২য় বিশ্বযুদ্ধের সময় বার্মা রণাঙ্গনে ব্রিটিশ বাহিনীর কমান্ডার হিসাবে যুদ্ধ করার অভিজ্ঞতা ছিলো ।

১৯৭১ সালের ১৭ই এপ্রিল মুক্তিবাহিনী গঠিত হলেও এর কোন সমন্বিত রূপ ছিলোনা এবং তখনও নিয়মিত বাহিনী হিসাবে মুক্তিবাহিনী সংগঠিত ছিলোনা । সংগঠিত বাহিনী হিসাবে মুক্তিবাহিনী যাত্রা শুরু করে ১৯৭১ সালের ১১ জুলাই । এই দিন অস্থায়ী রাষ্ট্রপ্রধান সৈয়দ নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রীসভার মিটিং এ সমগ্র বাংলাদেশকে ১১ টি সেক্টরে বিভক্ত করে অর্গানাইজড ফর্মে মুক্তিবাহিনী পুনর্গঠন করা হয় । কর্ণেল আতাউল গণি ওসমানীকে কমান্ডার-ইন-চীফ (Commander-in-chief) হিসাবে বহাল রেখে, লে. কর্ণেল আব্দুর রবকে চীফ অফ আর্মি ষ্টাফ এবং গ্রুপ ক্যাপ্টেন এ কে খন্দকারকে ডেপুটি চীফ অফ আর্মি ষ্টাফ এবং এয়ার ফোর্সের প্রধান হিসাবে নিয়োগ দেয়া হয় । এ ছাড়া ১১টি সেক্টরের প্রতিটিতে আলাদা করে সেক্টর কমান্ডার নিয়োগ করা হয় যাদের সবাই কমান্ডার-ইন-চীফ (Commander-in-chief) কর্ণেল ওসমানীর অধীনে ছিলেন ।

এই হলো প্রকৃত ইতিহাস । এখন মুজিবনগর সরকার যখন স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে (যেটি চূড়ান্ত বিজয়লাভের পর বাংলাদেশ সরকার গঠন এবং সংবিধান রচনার আইনী দলিল) বঙ্গবন্ধুকে (রাষ্ট্রপতি হিসাবে) বাংলাদেশ সরকারের অধীনস্ত সকল আর্মড ফোর্সেস এর সুপ্রীম কমান্ডার (Supreme Commander ) বা সর্বাধিনায়ক হিসাবে ঘোষণা করার পর মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন সেটি স্পষ্ট । কারণ স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রটিই হলো স্বাধীন বাংলাদেশের প্রধান আইনী দলিল যা ছিলো সংবিধান এবং সরকার গঠনের মুল ভিত্তি । এখানে উল্লেখ্য যে বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানে জেলে আটক থাকার কারণে সৈয়দ নজরুল ইসলাম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করায় মুক্তিযুদ্ধের সময়কালে তিনি মুক্তিযুদ্ধের ভারপ্রাপ্ত সর্বাধিনায়ক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন কেননা স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে রাষ্ট্রপতির সর্বাধিনায়ক হবার ব্যাপারে স্পষ্ট ঘোষণা ছিলো ।

পরবর্তীতে মুক্তিবাহিনীর কমান্ডার-ইন-চীফ (Commander-in-chief) কর্ণেল ওসমানীকে নিয়োগ দেয়ায় এবং যুদ্ধক্ষেত্রে মুল নেতৃত্বে তিনি থাকায় তিনি ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের প্রধান সেনাপতি (যেটি কমান্ডার-ইন-চীফ এর বঙ্গানুবাদ হতে পারে) বা মুক্তিবাহিনীর সর্বাধিনায়ক । এখানে এটা বুঝতে হবে তিনি কমান্ডার-ইন-চীফ (Commander-in-chief) হলেও স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র অনুযায়ী বাংলাদেশ সরকারের সকল আর্মড ফোর্সেস এর সুপ্রীম কমান্ডার (Supreme Commander ), এক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতি, এর আওতাধীন ছিলেন । এ থেকেই স্পষ্ট হয়ে যায় যে মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক বা সুপ্রীম কমান্ডার (Supreme Commander ) ছিলেন নবগঠিত বাংলাদেশ সরকারের রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ।

এখন একটা সহজ সত্যকে বুঝতে হবে এর মাধ্যমে আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রধান সেনাপতি জেনারেল আতাউল গণি ওসমানীর বিন্দুমাত্র অবমুল্যায়ন হয়না । তার যোগ্যতা, নেতৃত্ব গুণাবলীর কারণেই তাকে মুক্তিবাহিনীর কমান্ডার-ইন-চীফ (Commander-in-chief) হিসাবে নিয়োগ দেয়া হয়েছিল এবং সেই যৌবনকালের বার্মা রণাঙ্গনের মত তিনি তার যুদ্ধকৌশল এর মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধকে সুচারুভাবে পরিচালনা করেছেন এবং বিজয় ছিনিয়ে নিয়ে এসেছেন । একটি জাতির জন্মযুদ্ধের একজন রূপকার এবং জাতীয় বীর হিসাবে আজীবন সকল বাংলাদেশী তার অবদানের কথা শ্রদ্ধাভরে মনে রাখবে । যারা তার অবমুল্যায়নের চেষ্টা করে তারা আসলে নিজেদেরই অবমুল্যায়ন করে তাতে জেনারেল ওসমানীর অবদানে একটুকুও আচড় পড়েনা ।

আশা করি এর মাধ্যমে সকল বিভ্রান্তির অবসান ঘটবে ।

পুনশ্চ : মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক বা মুক্তিবাহিনীর সর্বাধিনায়ক নিয়ে আন্তর্জাতিক মিডিয়াগুলিতেও এখনো বিভ্রান্তি আছে । সম্প্রতি বিবিসিতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাওয়া সংক্রান্ত একটি সংবাদে অবসরপ্রাপ্ত এয়ার ভাইস মার্শাল (মুক্তিযুদ্ধের সময় গ্রুপ ক্যাপ্টেন) এ কে খন্দকারকে মুক্তিযুদ্ধের উপ-সর্বাধিনায়ক হিসাবে লেখা হয়েছে । লিংক এখানে । যদিও আইডিয়ালী বলা উচিত ছিলো মুক্তিবাহিনীর উপ-সর্বাধিনায়ক । আসলে সরকারকেই উদ্যোগী হয়ে এই জাতীয় বিভ্রান্তি দুর করা উচিত ।

সংযুক্তি : ১৯৭১ সালের ১০ই এপ্রিল গৃহীত বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রের মুল ইংরেজী দলিল ।

দলিলটির ইংরেজী টেক্সট

Whereas free elections were held in Bangladesh from 7th December, 1970 to 17th January, 1971, to elect representatives for the purpose of framing a constitution,
And
Whereas at these elections the people of Bangladesh elected 167 out of 169 representatives belonging to the Awami League,
And
Whereas General Yahya Khan summoned the elected representatives of the people to meet on the 3rd March 1971, for the purpose of framing a constitution,
And
Whereas instead of fulfilling their promise and while still conferring with the representatives of the people of Bangladesh, Pakistan authorities declared an unjust and treacherous war,
And
Whereas in the facts and circumstances of such treacherous conduct Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman, the undisputed leader of the 95 million people of Bangladesh, in due fulfillment of the legitimate right of self determination of the people of Bangladesh, duly made a declaration of independence at Dacca on March 26, 1971, and urged the people of Bangladesh to defend the honour and integrity of Bangladesh,
And
Whereas in the conduct of a ruthless and savage war the Pakistani authorities committed and are still continuously committing numerous acts of genocide and unprecedented tortures, amongst others on the civilian and unarmed people of Bangladesh,
And
Whereas the Government by levying an unjust war and committing genocide and by other repressive measures made it impossible for the elected representatives of the people of Bangladesh to meet and frame a Constitution, and give to themselves a Government,
And
Whereas the people of Bangladesh by their heroism, bravery and revolutionary fervour have established effective control over the territories of Bangladesh,
And
We the elected representatives of the people of Bangladesh as honor bound by the mandate given to us by the people of Bangladesh whose will is supreme, duly constituted ourselves into a Constituent Assembly, and
Having held mutual consultations, and
In order to ensure for the people of Bangladesh equality, human dignity and social justice,
Declare and constitute Bangladesh to be sovereign peoples’ Republic and thereby confirm the declaration of independence already made by Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman, and
Do hereby affirm and resolve that till such time as a Constitution is framed, Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman shall be the President of the Republic and that Syed Nazrul Islam shall be the Vice-President of the Republic, and
That the President shall be the Supreme Commander of all the Armed Forces of the Republie,
Shall exercise all the Executive and Legislative powers of the Republic including the power to grant pardon,
Shall exercise all the power to appoint a Prime Minister and such other Ministers, as he considers necessary,
Shall have the power to levy taxes and expend monies,
Shall have the power to summon and adjourn the Constituent Assembly, and
Do all other things that may be necessary to give to the people of Bangladesh an orderly and just Government,
We the elected representatives of the people of Bangladesh do further resolve that in the event of there being no President or President being unable to enter upon his office or being unable to exercise his powers and duties due to any reason whatsoever, the Vice-President shall have and exercise all the powers, duties and responsibilities herein conferred on the President,
We further resolve that we undertake to observe and give effect to all duties and obligations that devolve upon us as a member of the family of nations and under the Charter of United Nations.
We further resolve that this proclamation of independence shall be deemed to have come into effect from 26th day of March 1971.
We further resolve that in order to give effect to this instrument we appoint prof. Yusuf Ali our duly Constituted Potentiary and to give to the President and the Vice-President oaths of office.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *