জিনিসপত্রের দাম বাড়বে না

উত্তরণ প্রতিবেদন: জনকল্যাণে ধারাবাহিকভাবে উচ্চাভিলাষী বাজেট দেওয়া হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এমপি। তিনি বলেন, এবারের বাজেট আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ বাজেট। বাজেট বাস্তবায়নে সরকারের দক্ষতা অন্য যে কোনো সময়ের চেয়ে এখন অনেক ভালো দাবি করে সমালোচনাকারীদের উদ্দেশে তিনি আরও বলেন, গত আট বছরে বাজেটের আকার ৫ গুণ বেড়েছে। ওই সময় বেড়েছে সরকারের আয়ও। তা হলে বাস্তবায়নের দক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন থাকতে পারে? তিনি বলেন, ১৫ শতাংশ ভ্যাট কার্যকর করা হলেও জিনিসপত্রের দাম বাড়বে না। কারণ, অনেক পণ্যে ভ্যাট ছাড় দেওয়া হয়েছে। ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের ভ্যাট বাড়লে শিক্ষাক্ষেত্রে বৈষম্য তৈরি করবে না।
২ জুন বিকেল ৩টায় রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে প্রস্তাবিত ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন অর্থমন্ত্রী। আগামী অর্থবছরের বাজেট নিয়ে প্রতিক্রিয়া শুনে প্রশ্নের উত্তর দেন অর্থমন্ত্রী। মূল মঞ্চে অর্থমন্ত্রীর পাশে বসেছিলেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এমপি, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এমপি, পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এমপি এবং অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি। প্রসঙ্গত, উন্নয়নের মহাসড়কে বাংলাদেশকে আরও এগিয়ে নেওয়ার স্বপ্ন সামনে রেখে গত ১ জুন জাতীয় সংসদে নতুন অর্থবছরে ৪ লাখ ২৬৬ কোটি টাকার বাজেট উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী।
সংবাদ সম্মেলনে চালের দাম, নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর, মূল্যস্ফীতি, ব্যাংক আমানতের ওপর আবগারি শুল্ক, রেমিট্যান্স, বিনিয়োগ ও বিদ্যুৎ পরিস্থিতিসহ বিভিন্ন বিষয়ের ওপর জানতে চান সাংবাদিকরা। চালের দাম বেড়ে যাওয়া প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, হাওর এলাকায় অকালবন্যার কারণে চালের দাম বেড়ে গেছে। তবে আমাদের স্টক যথেষ্ট ভালো, তাই চালের দাম আর বাড়বে না। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এমপি। তিনি বলেন, এবার ৭টি জেলার হাওর এলাকায় ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এ ছাড়া আবহাওয়াজনিত কারণেও ধানের ফলন হয়নি। এসব কারণে সরকার ভিয়েতনাম থেকে চাল আমদানির চুক্তি করেছে। একই সাথে ওএমএস কার্যক্রম চালু, ফেয়ার প্রাইসে ১০ টাকা কেজিতে চাল বিক্রিসহ সরকারি অন্যান্য কার্যক্রম চালু রাখা হয়েছে। তিনি বলেন, আবার আউশ ফিরিয়ে আনার কার্যক্রম গ্রহণ করেছে সরকার। আশা করছি, সরকারি এসব উদ্যোগের ফলে ভবিষ্যতে চালের দাম আর বাড়বে না।

কিছু লোক চাল-চিনির দাম বাড়াচ্ছে
বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এমপি বলেছেন, বাজারে চালের সংকট নেই। তারপরও চাল ও চিনির দাম বাড়ানো হচ্ছে। কিছু লোক অতি উৎসাহী হয়ে এ কাজ করছে। শিল্পমন্ত্রী বলেন, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ব্যবসায়ীরা রোজার মাসে মুনাফা ছাড় দেয়। আর বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা রোজার মাসকে মুনাফা লাভের মোক্ষম সময় ধরে নেয়। আমাদের দেশে ব্যবসায়ীদের দেশপ্রেমের অভাব আছে। এর জন্য আইন করতে হবে। এক্ষেত্রে গণমাধ্যমের সহযোগিতা প্রয়োজন।

সঞ্চয়পত্রের সুদের বিষয়টি নিয়ে শীঘ্রই সিদ্ধান্ত
সঞ্চয়পত্রের সুদ সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, শীঘ্রই সঞ্চয়পত্রের সুদ সংক্রান্ত একটি বৈঠক করা হবে। ওই বৈঠকে সুদের বিষয়টি রিভিউ হতে পারে।

বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়ছে
গত কয়েক বছরে সরকারি বিনিয়োগের পাশাপাশি বেসরকারি খাতের বিনিয়োগ বেড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী। তিনি বলেন, বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ বাড়ছে না এটা ঠিক নয়। দেশের অর্থনীতির ৮০ শতাংশ বেসরকারি খাতে আর সেখানে সরকারের হাতে রয়েছে মাত্র ২০ শতাংশ। তাই বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়াতে সরকার সব ধরনের উদ্যোগ নিচ্ছে। বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানে সবচেয়ে বেশি জোর দেওয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, মোট বাজেটের প্রায় ৫৪ শতাংশ ব্যয় হবে দারিদ্র্য বিমোচনে।

জ্বালানি তেলের দাম কমছে না
গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে আবার তেলের দাম সমন্বয় হচ্ছে না এ প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, ঘোষণাই ছিল ২০১৮ সালের মধ্যে গ্যাসের দাম বাড়বে। আর এ মুহূর্তে তেলের দাম সমন্বয় করার কোনো সিদ্ধান্ত আসছে না। এটা বিবেচনাধীন রয়েছে।

রেমিট্যান্স কমেনি
অর্থমন্ত্রী জানান, রেমিট্যান্স কমেনি। আগামী ছয় মাসের মধ্যে রেমিট্যান্সের বিষয়টি ঠিক হয়ে যাবে।

রাজনীতির নামে শৃঙ্খলাভঙ্গের দিন শেষ
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এমপি বলেছেন, রাজনীতির নামে আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গের দিন শেষ। জ্বালা-পোড়াও করে এ দেশে আর কোনো রাজনীতি হবে না। এই অপরাজনীতির দিন শেষ হওয়ায় দেশের অর্থনীতি এগিয়ে যাচ্ছে।

এশিয়ান টাইগার
পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এমপি বলেছেন, সারাবিশ্বের কাছে বাংলাদেশের জিডিপি গ্রোথ এক বিস্ময়। বাংলাদেশ হচ্ছে এশিয়ান টাইগার। বিদেশি গণমাধ্যমে বাংলাদেশের এ সাফল্য বড় করে প্রচার হয়। তিনি বলেন, ৭ দশমিক ৪ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আশা করছি, আগামী বাজেটে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা সম্ভব হবে। তিনি বলেন, বিদেশিরা যেমন এ দেশে বিনিয়োগ করতে আসছেন, আবার আমাদের এখান থেকে বিদেশেও বিনিয়োগ করা হচ্ছে। আফ্রিকা, ভিয়েতনামসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এখন বাংলাদেশি উদ্যোক্তারা বিনিয়োগ করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *