সংখ্যা ব্লগ : আমাদের মুক্তিযুদ্ধ

মুক্তিযুদ্ধকে জানার জন্যে এই সংখ্যাগুলিকে জানা প্রয়োজন আছে। আর সেজন্যই একটু ভিন্নধর্মী এই সংখ্যা ব্লগ ।

২৬৭ – দিন স্থায়ী হয়েছিল আমাদের মুক্তিযুদ্ধ
২৬ – শে মার্চ বাংলাদেশ স্বাধীনতা ঘোষনা করে
৩০,০০,০০০ – শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত হয় স্বাধীনতা
২০০,০০০ – নারী ও শিশু ধর্ষিত হয় মুক্তিযুদ্ধের সময়কালে
১১১১ – জন বুদ্ধিজীবিকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়
১ – টি মাত্র মামলা দায়ের করা হয়েছিল পাক বাহিনীর যুদ্ধাপরাধের বিরুদ্ধে, যেটি পরবর্তীতে প্রত্যাহার করা হয়।
১০০,০০০ – জন সংগঠিত মুক্তিযোদ্ধা হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। অসংগঠিত ও সহযোগী যোদ্ধার সংখ্যা এর কয়েক গুন।
১৭ – ই এপ্রিল মুজিবনগরে প্রবাসী বাংলাদেশ সরকার গঠিত হয়।
১১ – ই জুলাই ১৯৭১, এই দিনে আনুষ্ঠানিকভাবে কর্ণেল ওসমানীর (পরবর্তীকালে জেনারেল) নেতৃত্বে নিয়মিত বাহিনী হিসাবে মুক্তিবাহিনীর যাত্রা শুরু হয়।
৫,০০০ – জন (অন্যূন) যুদ্ধ শিশু (পাক বাহিনীর ধর্ষনের ফলে জন্ম নেয়া) মুক্তিযুদ্ধ এবং পরবর্তী সময়ে জন্মগ্রহণ করে।
২১ – শে নভেম্বর, প্রথমবারের মত বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনী (মুক্তিবাহিনী) যৌথভাবে হানাদার পাকবাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করে
৪৫ – জন নৌসেনা নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশ নৌ-বাহিনী গঠিত হয়
৬৭ – জন বিমানসেনা নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশ বিমানবাহিনী গঠিত হয়
৩ – ডিসেম্বর, ভারত সরাসরি মু্ক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়ার কথা ঘোষণা করে
২৫০,০০০ – মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী (৬ – ১৫ ডিসেম্বর) ভারতীয় সেনাবাহিনীর সংখ্যা
১২৫,০০০ – হানাদার পাকবাহিনীর সংখ্যা যারা ৯ মাস ব্যাপী হত্যা ও ধর্ষন চালিয়েছে । এর মধ্যে ২৫,০০০ জন প‌্যারা মিলিটারী বাকীটা নিয়মিত সেনাবাহিনী।
১৪২৬ – মুক্তিযুদ্ধে জীবন দানকারী ভারতীয় সেনা সদস্যের সংখ্যা
৮.০০০ – যৌথ বাহিনী (মুক্তিবাহিনী এবং ভারতীয় সেনাবাহিনী) এর হাতে নিহত হানাদার পাকবাহিনীর সংখ্যা
৭ – জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধাকে সর্বোচ্চ স্বীকৃতি হিসাবে বীরশ্রেষ্ঠ খেতাব প্রদান করা হয়।
২২ – জন মুক্তিযোদ্ধাকে ২য় সর্বোচ্চ স্বীকৃতি হিসাবে বীরউত্তম খেতাব প্রদান করা হয়।
১১ – টি সেক্টরে বাংলাদেশকে বিভক্ত করে মুক্তিবাহিনী স্বাধীনতা সংগ্রাম পরিচালনা করে।
১৬ – ই ডিসেম্বর লক্ষ প্রাণের ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত হয় মুক্তিযুদ্ধের বিজয়, স্বপ্নের স্বাধীনতা

পাদটীকা : তথ্যসূত্র – বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন,বিভিন্ন ওয়েবসাইট, গবেষণা পত্র এবং মার্কিন তথ্য আর্কাইভ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *