স্বাধীনতার মাস : বঙ্গবন্ধু ছিলেন অপ্রতিরোধ্য

লেখক: মাহমুদুল বাসার

তারিখ: ২ মার্চ ২০১৭

শুরু হয়েছে ঐতিহাসিক মার্চ মাস। এই মাসের ১৭ তারিখ বঙ্গবন্ধু জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন দ্বিঘল পুরুষ। তার অবয়ব ছিল বিশ্বের সেরা সুদর্শন ও নান্দনিক। বিশ্বের কোন রাষ্ট্রনায়কই এতটা নিখুঁত সুন্দর নয়। একমাত্র স্বামী বিবেকানন্দের সঙ্গেই তার সৌম্যকান্তি চেহারার তুলনা চলে। তার গায়ের রং ছিল বাংলাদেশের মাটির মতো, তার মাথার চুল ছিল বাংলার কাল বৈশাখী ঝড়, তার দুই চোখ ছিল বাংলার সবুজ দিগন্ত, তার গায়ের মাংস ছিল বাংলার কাদামাটি, তার গায়ের রক্ত ছিল নদী-জল।

তিনি এসেছিলেন বাংলার প্রাচীন জনপদ ‘বঙ্গ’ থেকে। নেতাদের মধ্যে একমাত্র শেরে বাংলাই এ জনপদে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি এসেছিলেন বাংলার দক্ষিণ প্রান্ত থেকে, প্রান্তিক জনপদ থেকে। অনভিজাত, মধ্যবিত্ত ও ধান্য পরিবার থেকে। তার পিতা-মাতা ছিলেন সরল, অনাড়ম্বর, সাদাসিদে।

রবীন্দ্র-নজরুলের মতো তিনি ছোটকাল থেকে রাজনীতি চর্চা শুরু করেন, যেমন মহান দুই কবি ছোটবেলা থেকে কাব্যচর্চা শুরু করেছিলেন। তৃণমূল থেকে লড়াই করে উঠে এসেছিলেন। তার ছিল সরলতা, রাজনৈতিক সততা, ছিল সাহস, ছিল ঝুঁকি নেবার প্রবণতা। ছিল নেতৃত্ব দেবার ক্ষমতা ছোটকাল থেকে, ছিল লক্ষ্যবিন্দু। তিনিও তার মুরব্বিদের অনুকরণ করেছেন, তিনি তার নেতাদের মান্য করতেন। তারা যা বলতেন তিনি তা অক্ষরে অক্ষরে পালন করতেন। তিনি আন্ডারগ্রাউন্ডের রাজনীতি করতেন না, নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতি করতেন। তার রাজনৈতিক জীবনে সবচেয়ে বেশি প্রভাব বিস্তার করেছিলেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। শেরেবাংলা এবং মওলানা ভাসানীর প্রভাবও ছিল তার ওপর।

নিজস্ব সাংগঠনিক প্রতিভার জোরে তিনি সকলকে ছাড়িয়ে জনপ্রিয়তার শীর্ষে চলে গিয়েছিলেন। তিনি তিলে তিলে ধীরে ধীরে বাংলার মানুষকে জাগিয়ে তুলেছিলেন, সংগঠিত ও ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন। তার রাজনীতিতে কোন অপকৌশল ছিল না। বাংলা সাহিত্যে রবীন্দ্রনাথ যে দায়িত্ব পালন করেছেন, তিনি বাংলার রাজনীতিতে সেই দায়িত্ব পালন করেছেন। দুই জনই স্থপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। একজন আজীবন বাংলাভাষা ও বাঙালী সংস্কৃতির জন্য পরিশ্রম করেছেন ও লড়াই করেছেন, অন্যজন বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য, বাঙালীর মুক্তির জন্য লড়াই করতে করতে জীবন বিসর্জন দিলেন সপরিবারে। একরাতে তার পরিবারের ৩২ জন সদস্যকে হত্যা করা হয়। তার মধ্যে ছিল সদ্য বিবাহিত নারী, ছিল শিশু, সন্তান সম্ভবা জননী। যিশুখ্রিস্টের চেয়েও নির্মম ছিল তার হত্যাযজ্ঞ।

তিনি ছিলেন অপ্রতিরোধ্য। ১৫ আগস্টের আগের দিন পর্যন্ত তাকে কেউ রোধ করতে পারেনি। বলেছিলেন তার অগ্নিগর্ভ ভাষণে, ‘এদেশকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাল্লাহ।’ তাই করেছিলেন, কেউ রোধ করতে পারেনি। সকল প্রকার দ্বিধা-দ্বন্দ্ব চুরমার করে, সকল ভ্রুকুটি উপেক্ষা করে তিনি ১৯৭৪ সালে পাকিস্তানের লাহোরে অনুষ্ঠিত ইসলামিক সম্মেলনে যোগদান করেছিলেন। তিনি জানিয়ে দিয়েছিলেন যে, তিনি স্বাধীন সার্বভৌম দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিজস্ব সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষমতা রাখেন। তিনি পাপেট নন।

১৯৭৩ সালে আলজিরিয়ায় অনুষ্ঠিত জোট নিরপেক্ষ সম্মেলনে তিনি সাম্রাজ্যবাদকে তোয়াক্কা না করে বলেছিলেন, ‘বিশ্ব আজ দু’ভাগে বিভক্ত, এক ভাগে শোষক অন্য ভাগে শোষিত, আমি শোষিতের পক্ষে।’ তিনি আমৃত্যু শোষণহীন সোনার বাংলা কায়েম করার লড়াই করে গেছেন। জাতিসংঘের মতো বিশ্ব সভায় তিনি মাতৃভাষা বাংলায় ভাষণ দিয়েছেন। এটাও তার অপ্রতিরোধ্যতা। এ জন্যই মহান, কমরেড ফিদেল ক্যাস্ত্রো বলেছিলেন, ‘আমি হিমালয় দেখিনি, মুজিবকে দেখেছি।’

বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঊষালগ্নে তিনি ভিয়েতনাম ও প্যালেস্টাইনকে স্বীকৃতি দিয়ে বিশ্বের নিপীড়িত মানুষের কণ্ঠস্বরে পরিণত হয়েছিলেন। এটাও তার অপ্রতিরোধ্যতা। বাংলাদেশ ও বাঙালীর শত্রু ড. কিসিঞ্জার বিদ্রূপ করে বলেছিল, ‘বাংলাদেশ তলাবিহীন ঝুড়ি।’ তিনি মার্কিনের মাটিতে দাঁড়িয়ে সাংবাদিকদের মাধ্যমে এই উপহাসের উত্তর দিয়েছিলেন। বলেছিলেন, ‘বাংলাকে শোষণ করে ইসলামাবাদ ও লন্ডনের ডান্ডি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আমাদেরও সম্পদ আছে, আমরাও উঠে দাঁড়াব।’ এটা যেমন তার অপ্রতিরোধ্যতা, তেমনি আত্মপ্রত্যয়।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর পরই তিনি জেনে গিয়েছিলেন যে, সাম্রাজ্যবাদ তাকে বাঁচতে দেবে না। সাম্রাজ্যবাদ তাঁর পিছনে এজেন্ট লাগিয়ে দিয়েছে। তার বিরুদ্ধে মৌলবাদী ডানেরা ও হঠকারী বামেরা অস্ত্র তাক করে ফেলেছে। এম আর আখতার মুকুল যখন লন্ডনে যান দায়িত্ব নিয়ে, তখন তিনি মুকুলকে বলেছিলেন, ‘দ্যাখ তো, আমার বুকে কয়টা গুলি লাগবে।’ অসংকোচ প্রকাশের দুরন্ত সাহসে বলেছিলেন, ‘আমার অবস্থা আলেন্দের মতো হলেও আমি পিছপা হবো না, তাতে যা হয় হবে।’ এটাও তার অপ্রতিরোধ্যতা।

বাংলার মাটিতে পা দেবার আগেই তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী, মহীয়সী নারী শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধীর কাছ থেকে ভারতীয় সৈন্য প্রত্যাহারের প্রতিশ্রুতি আদায় করেছিলেন। অন্য নেতারা একবারই দেশ স্বাধীন করেছেন, তিনি দুইবার দেশ স্বাধীন করেছেন। তিনি যখন ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি লন্ডনে এসে নামলেন, তখন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী তার ব্যক্তিগত কাজ ফেলে দৌড়ে চলে এসেছিলেন বাংলাদেশের বিজয়ী নেতাকে স্বাগত জানাতে, নিজ হাতে তার গাড়ির দরজা খুলে দিয়েছিলেন। এতে বাঙালির মাথা উঁচু হয়েছিল। লন্ডনে সাংবাদিকদের তিনি বলেছিলেন, ‘বাংলার মুক্তিসংগ্রামে আজ আমি অপরিসীম ও অনাবিল আনন্দ অনুভব করছি। এই মুক্তি সংগ্রামের চূড়ান্ত লক্ষ্য ছিল স্বাধীন সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ। আমার জনগণ যখন আমাকে বাংলাদেশের ‘রাষ্ট্রপতি’ হিসাবে ঘোষণা করেছে তখন আমি রাষ্ট্রদোহের দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত, আসামি হিসেবে একটি নির্জন ও পরিত্যক্ত সেলে বন্দী জীবন কাটাচ্ছি। জেলখানায় আমাকে এক নিঃসঙ্গ ও নিকৃষ্টতম কামরায় বন্দী করে রাখা হয়েছিল। রেডিও, কোন চিঠিপত্র দেয় নাই।’ অধ্যাপক আবু সাইয়িদের এক কলাম থেকে জানতে পারি, ইয়াহিয়া খান গ্রেফতারের পূর্বে ভুট্টোকে অনুরোধ করেছিলেন শেখ মুজিবের মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকর করতে। কোন ব্যবস্থাই তার মনোবল চিড় ধরতে পারেনি। তার জিহ্বা থেকে এমন শব্দ আদায় করতে পারেনি যা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকে বিভ্রান্ত ও বিপথগামী করতে পারে। তার জন্য কবর খোঁড়া হয়েছিল। তিনি বলেছিলেন, ‘মানুষ তো একবারই মরে।’ এটাও তার অপ্রতিরোধ্যতা।

এতবড় রাষ্ট্র চীন। আমাদের বিরোধিতা করেছে। জাতিসংঘের সদস্যপদ লাভেরও বিরোধিতা করেছে। কিন্তু তিনি তার ক্যারিশমা দিয়ে জাতিসংঘের সদস্যপদ ছিনিয়ে এনেছেন। সেই জাতিসংঘে তিনি মাতৃভাষা বাংলায় ভাষণ দিয়েছেন। এটাও তার অপ্রতিরোধ্যতা। মহাকবি মাইকেল মাত্র সাড়ে তিন বছরে বাংলার কাব্যকে ৫০ বছর এগিয়ে দিয়ে গেছেন, আর তিনি ৩ বছরে বাংলাদেশের অস্তিত্বকে দৃঢ় ভিত্তির ওপর দাঁড় করিয়ে দিয়ে গেছেন।

আমেরিকার এক পত্রিকা, তাকে বলেছে ‘রাজনীতির কবি।’ বাঙালি কবি নির্মলেন্দু গুণও ৭ মার্চের ভাষণকে বলেছেন, ‘অমর কবিতা খানি।’ এদেশের প্রতিটি মানুষকে, প্রতি ইঞ্চি মাটিকে, প্রতিটি পাখ-পাখালিকে, প্রতিটি বৃক্ষ-পল্লবকে ভালবাসতেন তিনি। তার ভালবাসা শুকতারা হয়ে আকাশে জ্বলজ্বল করছে। জয় বাংলা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *