ইতিহাস : প্রবন্ধজাতীয়জাতীয় সংবাদতত্ত্ব তথ্য ইতিহাসপ্রতিবেদনবঙ্গবন্ধুবঙ্গবন্ধু শুধু একটি নামবঙ্গবন্ধুর চিন্তা ও দর্শনমুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাসারাদেশ

৬ষ্ঠ ভারত মহাসাগর সম্মেলনের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ আঞ্চলিক দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা জোরদার করার লক্ষ্যে এখানে দুই দিনব্যাপী ৬ষ্ঠ ভারত মহাসাগর সম্মেলন (আইওসি) উদ্বোধন করেছেন।
তিনি মহানগরীর একটি হোটেলে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশন এই ষষ্ঠ সম্মেলনের আয়োজন করছে।
সম্মেলনে অন্তত ২৫টি দেশের মন্ত্রী পর্যায়ের প্রতিনিধিদল যোগ দিচ্ছে। বাংলাদেশ ইন্ডিয়ান ওশান রিম অ্যাসোসিয়েশনের বর্তমান চেয়ারম্যান।
বাংলাদেশ আশা করছে, এ সম্মেলন ভারত মহাসাগর অঞ্চলের সমস্যা ও চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বেশ কিছু সুপারিশ করবে যা এই এলাকার ভবিষ্যত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। আইওসি আয়োজনের মাধ্যমে ভারত মহাসাগরের দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের অংশীদারিত্ব আরও শক্তিশালী হবে।
মরিশাসের প্রেসিডেন্ট এবং ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সহ ২৫টি দেশের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী পর্যায়ের প্রতিনিধিদল সম্মেলনে যোগ দিচ্ছে। এছাড়া, ডি-৮, সার্ক ও বিমসটেকের প্রতিনিধিসহ প্রায় ১৫০ জন বিদেশী অতিথি সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন। সম্মেলনে মিয়ানমারকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।
সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশনে মরিশাসের প্রেসিডেন্ট পৃথ্বীরাজসিং রূপন, মালদ্বীপের ভাইস-প্রেসিডেন্ট ফয়সাল নাসেম, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্কর, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন এবং সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র বিষয়ক সেকেন্ড মন্ত্রী ড. মালিকী ওসমান বক্তব্য রাখেন।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে বক্তৃতা করেন। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম শাহরিয়ার আলম মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অতিথিদের সম্মানে নৈশভোজের আয়োজন করবেন।
“শান্তি, সমৃদ্ধি ও টেকসই সহনশীল ভবিষ্যতের জন্য অংশীদারিত্ব” থিম নিয়ে আয়োজিত সম্মেলনটি ভারত মহাসাগরীয় অঞ্চলকে শক্তিশালী করার জন্য রোডম্যাপ তৈরী করার জন্য মূল স্টেকহোল্ডারদের একত্রিত করবে।
ইন্ডিয়ান ওশান কনফারেন্স (আইওসি) ২০১৬ সালে শুরু হয়েছিল এবং গত ছয় বছরে এটি আঞ্চলিক বিষয়ে এই অঞ্চলের দেশগুলির জন্য “ফ্ল্যাগশিপ কনসালটেটিভ ফোরাম” হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে।
এ সম্মেলন অঞ্চলের সকলের জন্য নিরাপত্তা ও প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যে আঞ্চলিক সহযোগিতার সম্ভাবনার বিষয়ে আলোচনা করার জন্য এই অঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্র ও প্রধান সামুদ্রিক অংশীদারদের একটি সাধারণ প্ল্যাটফর্মে একত্রিত করার প্রয়াস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *